শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০৮ পূর্বাহ্ন
অনলাইন বিজনেস এর বিক্রয় বাড়াতে কি কি করা দরকার
/ ৩০৫ Time View
Update : শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪

বর্তমানে তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও কর্ম ব্যস্ততায় সময় কাটাচ্ছে। পুরুষ বাইরে কাজ করছে আর নারীরা ঘর সংসার সামলানোর পাশাপাশি অনলাইন বিজনেস করছে। যার ফলে তাদের সংসার সামলানোর পাশাপাশি একটা বাড়তি আয়ের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু আমরা অনেকেই জানিনা অনলাইন বিজনেস এর বিক্রয় বাড়াতে কি কি করা দরকার। বর্তমানে বাংলাদেশে যেহেতু ডিভাইস, ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক সহজলভ্য করা হয়েছে তাই দিন দিন বহু নারী-পুরুষ এই অনলাইন বিজনেস এ জড়িয়ে পড়ছে। যেহেতু অনলাইন বিজনেস টা হয়ে উঠেছে প্রতিযোগিতাময় তাই এখানে নিজের ভিত্তি টা কে মজবুত করতেই হবে, তা না হলে টিকে থাকা কষ্ট স্বাধ্য বেপার হয়ে দাঁড়াবে। যুদ্ধের ময়দানে যেমন ঢাল তলোয়ার নিয়ে প্রস্তুত থাকতে হয় প্রতিপক্ষ কে পরাজিত করার জন্য অনলাইন বিজনেসে ও তেমন কিছু ইনভিজিবল তলোয়ার প্রয়োজন যার দ্বারা প্রতিপক্ষের চেয়ে আপনি দ্রুত কাস্টমারের কাছে পৌঁছাতে পারবেন এবং আপনার বিজনেস এর সেল জেনারেট করতে পারবেন। আসুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক কি কি উপায়ে আপনার বিজনেস এর সেল দ্রুত বাড়ানো সম্ভব।

অনলাইন বিজনেসের বিক্রয় বাড়াতে কি কি করা দরকারঃ

আপনা কে যদি জিজ্ঞেস করা হয়, বিজনেস এ সফল হওয়ার মূল চাবিকাঠি কি? আপনার উত্তর কি হবে? নিশ্চয়ই আপনি বলবেন, “সেল বাড়ানো।” হ্যাঁ, ঠিক তাই। একটা বিজনেস এর মূল স্বার্থকতা নিহিত থাকে বিজনেস এর প্রোডাক্টগুলো সেল করার মাধ্যমে। প্রতিটি বিজনেস ম্যান-ই চায় তার অনলাইন বিজনেস এর প্রোডাক্টগুলো যেনো সবার কাছে আগে পৌঁছে। তাই নিজের অনলাইন  বিজনেস এর প্রোডাক্টগুলো সবার কাছে আগে পৌঁছে দিতে এবং সেল জেনারেট করতে নিচের টেকনিকগুলো অনুসরণ করা উচিৎ।

সঠিক পণ্য নির্বাচনঃ 

করোনাকালীন সময়ে এই অনলাইন বিজনেসে যেহেতু অনেক মানুষ যুক্ত হয়েছে তাই প্রতিযোগিতা টাও অনেক গুন বেশি। তাই আপনি কি পণ্য নিয়ে ব্যবসা শুরু করবেন সেটা আগে সতর্কতার সাথে নির্বাচন করুন। ধরুন আপনার একটি অনলাইন বিজনেস আছে। আর সেটার প্রোডাক্ট থ্রি পিচ। আপনি জানলে হয়তো অবাক হবেন বাংলাদেশের মাক্সিমাম অনলাইন বিজনেসগুলো গড়ে উঠেছে এই থ্রি পিচ আর কসমেটিকস এর উপর। হিসেব মতে, বাংলাদেশের প্রতি ৫ জন ব্যবসায়ীর মধ্যে ৩ জন ব্যবসায়ী তার অনলাইন বিজনেস গড়ে তুলেছে মেয়েদের থ্রি পিচ, কসমেটিকস, মেক-আপ এর উপর। তাহলে আপনি বুঝতেই পারছেন এই পণ্য বিক্রয় করতে হলে আপনাকে দ্বিগুণ পরিশ্রম করতে হবে। কারণ কাস্টমারদের কাছে পৌঁছাতে হলে আপনাকে বেশি টাকায় বুস্টিং করাতে হবে। তা না হলে আপনি সবার পিছনে পড়ে থাকবেন। তবে এ ক্ষেত্রে আশার কথা হলো, অনলাইনে থ্রি পিচ কিংবা কসমেটিকস, মেক-আপ কেনার ক্রেতার সংখ্যা টা ও অনেক। এক্ষেত্রে আপনি আপনার বিজনেস এর জন্য এমন প্রোডাক্ট সিলেক্ট করুন যেটা অন্যদের থেকে ভিন্ন। তাহলে আপনার প্রতিযোগিতা একটু কম হবে। এক্ষেত্রে আপনি সৌখিন কোনো দ্রব্য যেটা পাওয়া দুষ্কর এমন প্রোডাক্ট সিলেক্ট করতে পারেন। আবার হ্যান্ড মেড কিছু প্রোডাক্ট, পেইন্টিং করা শাড়ি, ফুলদানি ইত্যাদি পণ্য হিসেবে সিলেক্ট করতে পারেন। কেননা এই প্রোডাক্টগুলো অনেক ইউনিক হয়, যেটা আপনি ছাড়া অন্য কারো কাছে পাওয়া যাবে না তাই সেল ও বেশি হবে। আবার,  ফেসবুক বুস্টিং এর মাধ্যমে সহজেই আপনার পণ্য টি আপনার টার্গেটেড কাস্টমার এর কাছে পৌঁছাতে পারবেন। তাই অনলাইন বিজনেস এর ক্ষেত্রে সঠিক পণ্য টি বাছাই করা জরুরি।

ফেসবুক বুস্টিংঃ 

ধরুন আপনার একটি বিজনেস আছে এবং সেটা আপনার বন্ধু- বান্ধব এবং সজন ছাড়া কেও জানে না। তাহলে আপনার বিক্রি কেমন হবে? নিশ্চয়ই কম। অনলাইন বিজনেস ও ঠিক তেমন। আপনার যদি একটি অনলাইন বিজনেস থাকে এবং তার কথা যদি অল্প সংখ্যক মানুষ জানে তাহলে আপনার সেল ও অল্প হবে। তাহলে আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে এর সমাধান কি। এর সমাধান হলো বুস্টিং। আপনার অনলাইন বিজনেস এর জন্য  একটি কার্যকরী বিজ্ঞাপন তৈরি করুন এবং সেটি ভালো এজেন্সি থেকে বুস্টিং করিয়ে নিন। তবে খেয়াল রাখবেন বেশি টাকা দিয়ে বিজ্ঞাপন বুস্টিং করালেই যে বেশি সেল হবে এমন টা কিন্তু নয়। দক্ষ লোক দ্বারা বিজ্ঞাপন বুস্টিং করান এবং গ্রাহকদের কাছে আপনার প্রোডাক্ট পৌঁছে দিন। আপনি ভাবতে পারেন কার্যকরী বিজ্ঞাপন টা কি। কার্যকরী বিজ্ঞাপন হলো এমন বিজ্ঞাপন যা আপনার টার্গেটেড কাস্টমার এর জন্য প্রযোজ্য। ধরুন আপনার বিজ্ঞাপন টি কোর্স রিলেটেড। তাহলে আপনার বিজ্ঞাপনে অবশ্যই আপনার কোর্সের ভালো দিক টা তুলে ধরতে হবে। যাদের জন্য আপনার বিজ্ঞাপন তাদের কথা মাথায় রেখে বিজ্ঞাপন করা উচিৎ, তাদের রুচি কে প্রাধান্য দেওয়া উচিৎ। বিজ্ঞাপন টি ভিডিও ফরমেটে হলে ভালো হয়, একটি ভিডিও অবশ্যই সবার কাছে বেশি গ্রহণযোগ্য হয়। আর বিজ্ঞাপন টি অবশ্যই প্রফেশনাল এবং আকর্ষণীয় হতে হবে। এমন ভাবে বিজ্ঞাপন তৈরি করুন যেটা আপনার পণ্য/প্রতিষ্ঠানের ব্র‍্যান্ডিং এর কাজ করবে। মার্কেটিং এর তুলনায় ব্র‍্যান্ডিং এর দিকে নজর দেওয়াটাই বুদ্ধিমান এর কাজ হবে। এভাবে আপনি আপনার বিজনেস এর জন্য বিজ্ঞাপন তৈরি করতে পারেন। এর ফলে আপনার সেল অনেক বেশি বৃদ্ধি পাবে। সুতরাং, বুস্টিং আপনার অনলাইন বিজনেস এর সেল বাড়ানোর অন্যতম একটি উপায়।

আপনার যদি ফেসবুক অ্যাড ক্যাম্পেইন এর দক্ষতা একেবারেই জিরো লেভেলের হয়ে থাকে, তাহলে নিজে নিজে ট্রাই করে অযথা টাকা নষ্ঠ না করে এক্সপার্ট এর সহায়তা নিন। আর এইজন্য নিতে পারেন আমাদের ফেসবুক অ্যাডভারটাইজিং সার্ভিস।

বিজনেস ওয়েবসাইটঃ

আপনি কি জানেন ক্রেতা কোন প্রোডাক্ট কেনার আগে কি করে থাকে? একজন ক্রেতা অনলাইন থেকে কোন প্রোডাক্ট কেনার আগে সেই প্রোডাক্ট টা ঠিক কেমন সে সম্পর্কে গুগলে সার্চ করে থাকে। কাংখিত প্রোডাক্ট টি যদি সে গুগলে পেয়ে যায় তাহলে সেই প্রোডাক্ট এর বিস্তারিত তথ্য পরে। এর সুবিধা, অসুবিধাগুলো ও তার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। একজন ক্রেতার কাছে ওয়েবসাইট এর রিভিউগুলো ও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। একটি প্রোডাক্ট এর ভালো এবং মন্দ দুই সাইড-ই রয়েছে। তাই নেগেটিভ রিভিউ যে সব সময় খারাপ তা কিন্তু না। ক্রেতা নেগেটিভ রিভিউ পিড়ে জানতে পারে প্রোডাক্ট টি কিনলে তার কি ধরনের প্রবলেম ফেস করতে হবে এবং কিভাবে এটি ওভার কাম করা যাবে। ই-কমার্স ওয়েবসাইট তাই একটি কাস্টমার এর বিশ্বস্ততা অর্জন করতে সাহায্য করে। আপনার অনলাইন বিজনেস এর যদি ওয়েবসাইট না থাকে তাহলে আপনি গুগলে সার্চ করা কাস্টমারগুলো কে হারাবেন। যা আপনার বিজনেস এর জন্য বিরাট ক্ষতি। আপনার যদি একটি বিজনেস ওয়েবসাইট থাকে এবং আপনি আপনার বিজনেস এর প্রোডাক্টগুলোর ডিসপ্লে ওয়েবসাইট এ দিয়ে থাকেন এবং এর নিচে ডিটেইলস এড করে দেন, এর ভালো দিক খারাপ দিক তুলে ধরেন তাহলে আপনি আপনার ওয়েবসাইট থেকে প্রচুর কাস্টমার পেয়ে যাবেন। আর ফেসবুক পেইজ কিংবা গ্রুপের মাধ্যমে বিজনেস এর পাশাপাশি যদি আপনার একটা ওয়েবসাইট থেকে থাকে তাহলে সেটা আপনার কাস্টমারদের আস্থা যোগাতে সাহায্য করবে। তাই অনলাইন বিজনেস এর সেল বাড়াতে আপনার অবশ্যই একটি বিজনেস ওয়েবসাইট থাকা দরকার। আপনি চাইলে আমাদের থেকে রেডিমেড ই-কমার্স ওয়েবসাইট নিতে পারেন । আমরা দিচ্ছি সূলভ মূল্যে আপনার পছন্দ আনুযায়ী রেডি ই কমার্স ওয়েবসাইট

ইকমার্স ওয়েবসাইট

দ্রুত রেসপন্সঃ

কাস্টমার যখন আপনার ফেসবুক পেইজ কিংবা ইনবক্সে মেসেজ দিবে কোনো প্রোডাক্ট এর দাম জানার জন্য তখন দেরি না করে সাথে সাথে আপনার রিপ্লে দেওয়া উচিৎ। এবং পরবর্তী তে আপনার খেয়াল রাখা উচিৎ তারা কি জানতে চাচ্ছে। কখনোই বিরক্ত প্রকাশ করা উচিৎ না। বাস্তব একটি অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করি। কিছু দিন আগে একটি প্রোডাক্ট কেনার জন্য একজন মহিলা কে আমি নক দেই এবং প্রোডাক্ট এর ভালো পিকচার এবং বিস্তারিত জানতে চাই। কিন্তু তিনি কোনো পিকচার দেয়নি এবং প্রোডাক্ট এর সব বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করতে পারেনি। ইনফরমেশন ঘাটতির জন্য আমি প্রোডাক্ট টি ক্রয় করতে ইচ্ছা পোষণ করিনি। তাই আপনি যদি আপনার কাস্টমার এর সাথে বিনয়ী না হন, তার কথাগুলো শুনে তা সলভ করার চেষ্টা না করেন তাহলে আপনি কাস্টমার হারাবেন। তবে একটা ভালো উপায় আছে, আপনি যদি আপনার বিজনেস এর একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে থাকেন তাহলে সেখানে আপনার প্রোডাক্ট এর বেটার কোয়ালিটি পিকচার দিতে পারবেন সাথে তার বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করে দিতে পারবেন। এর ফলে আপনার প্রতিটি কাস্টমার কে ইনবক্সে এনে বিস্তারিত তথ্য বলতে হবে না এবং একজন কাস্টমার আপনার ওয়েবসাইট এ গিয়েই সমস্ত তথ্য জানতে পারবে এবং সেখান থেকেই অর্ডার করতে পারবে। তাই আপনার বিজনেস এর সেল বাড়াতে চাইলে দ্রুত রেসপন্স এর জন্য একটি বিজনেস ওয়েবসাইট দরকার।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Total Post : 44